ঢাকা, রোববার   ২২ মে ২০২২ ||  জ্যৈষ্ঠ ৮ ১৪২৯

প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ এর লিখিত পরীক্ষা ঢাকায় নেওয়ার দাবি

প্রকাশিত: ১৫:০৬, ২১ মার্চ ২০২২  

প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ-২০২০ এর লিখিত পরীক্ষা কেন্দ্রীয়ভাবে ঢাকায় নেওয়ার দাবিতে সংবাদ সম্মেলন করেছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) চাকরি প্রত্যাশী শিক্ষার্থীরা

এসময় তারা জেলা পর্যায়ে পরীক্ষা নেওয়ার যে প্রস্তুতি চলছে সেটা বাতিলের দাবি জানায়

 

সোমবার (২১ মার্চ) দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় লাইব্রেরীর রিডিং রুমে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে চাকরি প্রত্যাশি শিক্ষার্থীরা

লিখিত বক্তব্যে গণযোগাযোগ সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষার্থী খাইরুল ইসলাম জানান, দীর্ঘদিন সরকারি চাকরি পরীক্ষা বন্ধ থাকায় আমরা সরকারি চাকরির জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছি আজ দিশেহারা হওয়ার পথে একদিকে চাকরি পরীক্ষায় নিয়োগ বন্ধ, অন্যদিকে যে কয়টি পরীক্ষা হচ্ছে, তার মধ্যে পরীক্ষা গুলোতে দুর্নীতি অনিয়মের অভিযোগ উঠছে চলতি বছরে প্রাথমিকে প্রায় ৪৫ হাজার সহকারি শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষাকে ঘিরে যে স্বপ্ন গাঁথা শুরু করেছিলাম

বিভাগীয় পর্যায়ে অনুষ্ঠিত বিভিন্ন চাকরি পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁসের ঘটনা আমাদের সেই স্বপ্নকে ভেঙ্গে চুরমার করে দেয়ার পথে প্রাথমিক সহকারি শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা-২০২০ এর লিখিত পরীক্ষা এপ্রিল মাসে দেশের বিভিন্ন জেলায় অনুষ্ঠিত হবে অথচ এই নিয়োগ পরীক্ষাটি কেন্দ্রীয়ভাবে ঢাকায় নেয়া হবে বলে গত সপ্তাহে দেশের শীর্ষ গণমাধ্যমগুলোতে প্রকাশিত হয়েছিল সেই খবরের এক সপ্তাহ যেতে না যেতেই গতকাল কর্তৃপক্ষ জেলা পর্যায়ে পরীক্ষাটি নেয়ার জন্য প্রাথমিকভাবে সিদ্ধান্ত নিয়েছে

 

সংবাদ সম্মেলনে আরো বলা হয়, একটি কুচক্রী স্বার্থান্বেষী মহল নিয়োগ পরীক্ষা গুলোতে জালিয়াতি, দুর্নীতি করে নিজেদের আখের গোছাতে জেলা পর্যায়ে পরীক্ষাটি নেয়ার জন্য বেশ তৎপর হয়ে পড়েছে তারা চায়, যেকোনো মূল্যে নিয়োগ পরীক্ষাটি জেলা পর্যায়ে নিতে এতে করে তারা প্রশ্নপত্র ফাঁস বা কেন্দ্র দখল করে তাদের নির্ধারিত অযোগ্য প্রার্থীদের নিয়োগের পথ সুগম করতে চায় অথচ কেন্দ্রীয়ভাবে শুধু ঢাকায় পরীক্ষাটি অনুষ্ঠিত হলে অন্য সকল চাকরি পরীক্ষার মতো প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষাটিও কর্তৃপক্ষ সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে পারবে

 

এসময় উপস্থিতি ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের সাবেক শিক্ষার্থী নাফিসা আলম, সমাজকর্ম বিভাগের সূর্বনা রায়,অর্থনীতি বিভাগের তাজমুল ইসলাম,গণযোগাযোগ সাংবাদিকতা বিভাগের কামাল হোসেন নৃবিজ্ঞান বিভাগের এম আর খানসহ প্রায় দেড় শতাধিক শিক্ষার্থী

সর্বশেষ
জনপ্রিয়